বলিউডে স্বজনপোষণের ধ্বজাধারীদের ছবি বয়কট! সুশান্তের মৃ’ত্যুর পর সিদ্ধান্ত রূপার

সুশান্ত সিং রাজপুতের আত্মহ’ত্যার খবরে শিউড়ে উটেছে গোটা দেশ। অভিযোগ উঠেছে, এই মৃ’ত্যুর নেপথ্যে রয়েছে হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির তাবড়দের প্রভাব এবং তাঁদের প্রভাবশালী তকমার জোর। সোশ্যাল মিডিয়ায় #বয়কট বলিউড, #ডোন্ট ওয়াচ স্টার কিডস ফিল্ম– এ জাতীয় স্লোগান ট্রেন্ডিং। অবসাদ না কাজের অভাব, দুইয়ের সাঁড়াশি চাপেই কি মাত্র ৩৪-এ ফুরিয়ে গেলেন প্রতিভাবান অভিনেতা? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে হন্যে পুলিশ থেকে অভিনেতার ফ্যানেরা।

এই পরিস্থিতিতে প্রথম থেকেই সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃ’ত্যুতে সিবিআই তদন্তের দাবি করেছেন বিজেপি সাংসদ ও অভিনেত্রী রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। এবার তিনি জানালেন, সুশান্তের মৃ’ত্যুর পর তিনি বলিউডে স্বজনপোষণ বা নেপোটিজমের সঙ্গে যুক্তদের ছবি দেখা বয়কট করতে চলেছেন। রূপা গঙ্গোপাধ্যায় বলেছেন, বলিউডের বিশেষ কয়েকজন ব্যক্তিত্ব, যাঁরা নির্লজ্জভাবে স্বজনপোষণ করে থাকেন, তাঁদের সিনেমা তিনি বয়কট করবেন।

একটি সংবাদসংস্থাকে তিনি ফোনে বলেছেন, ‘এরপর আমি নির্দিষ্ট কিছু লোকেদের সিনেমা দেখব না। কারণ, তাঁরা দেশকে একটা বার্তা দিয়েছেন যে, ছোট শহরগুলি থেকে ছেলে-মেয়েদের ইন্ডাস্ট্রিতে আসা উচিত নয়। সেখানে সর্বত্র থাকবে স্বজনপোষন। বাবা-মায়েরা অবশ্যই তাঁদের সন্তানদের সাহায্য করতে পারেন। কিন্তু এটা এমন পর্যায়ে পৌঁছে যাওয়া উচিত নয়, যা কাউকে কাউকে মৃ’ত্যুর মুখে ঠেলে দেবে।’ গত প্রায় এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে সুশান্তের অকালমৃ’ত্যুর ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানাচ্ছেন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। তাঁর ট্যুইটার টাইমলাইন জুড়ে রয়েছে হ্যাশট্যাগ সিবিআই ফর সুশান্ত।

রূপা গঙ্গোপাধ্যায় বলেছেন, ফরেনসিক দল কেন ১৫ জুন তাঁর বাড়িতে গেল। পুলিশ বলছে যে, এক্ষেত্রে কোনও চক্রান্ত নেই। একদিন পরে ফরেনসিক দল পৌঁছল, এটাই বড় প্রশ্ন তুলে দেয়। শরীরে এত বেশি দাগ ছিল কেন? ছাদ থেকে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলে পড়লেও শেষ ছবিতে যা দেখা গিয়েছে, তাতে মুখে সেটার ছাপ নেই। পুলিশ এখনও বাড়িটি সিল করেনি কেন? তাঁর কুকুর কোথায়?

তাঁকে খু’ন করা হয়েছে, এমনটা কি সম্ভব নয়? এটা কী সম্ভব নয় যে, তাঁকে কেউ হ’ত্যা করে, বেডরুমে দেহ রেখে বলছেন যে, চাবি হারিয়ে গিয়েছে? কাউকে এখনও গ্রেফতার করা হল না কেন? পুলিশ এটা আত্মহ’ত্যা বলে প্রমাণ করতে পারেনি বলেও অভিযোগ করেছেন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। রূপা গঙ্গোপাধ্যায় বলেছেন, যে ব্যক্তি মাটির এত কাছাকাছি, বিনম্র, যিনি এত উচ্চাকাঙ্খী ছিলেন যে, নিজের স্বপ্ন লিখে রাখতেন..তিনি কীভাবে এত সহজে হাল ছেড়ে দেবেন?

গত ২৫ জুন বিজেপি নেত্রী ও প্রবীণ অভিনেত্রী রূপা গঙ্গোপাধ্যায় অভিযোগ তুলেছিলেন যে, মৃ’ত্যুর পরও সুশান্তের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল কেউ চালাচ্ছে। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে তাঁর কোনও পোস্ট ডিলিট করা মানে তথ্যপ্রমাণ নষ্ট করার সামিল বলে দাবি রূপার। সুশান্তের মৃ’ত্যুতে সিবিআই তদন্ত দাবি করেছেন তিনি। একই দাবি করেছেন বাবুল সুপ্রিয়ও।

অন্যদিকে, মুম্বই পুলিশের দাবি সুশান্তের মৃ’ত্যুর আগে তাঁর প্রোফাইল থেকে বেশ কয়েকটি ট্যুইট ডিলিট করা হয়েছে। সেগুলি নিয়ে তথ্য জানতে চেয়েছেন তাঁরা। সুশান্তের শেষ ট্যুইট রয়েছে গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর। পাশাপাশি ২০০৭ থেকে ২০২০-র মধ্যে সুশান্তের জীবন ও তাঁর চরিত্র-মনের পরিবর্তন সম্পর্কে জানতে চেয়েছে পুলিশ। সে কারণেই বিভিন্ন ঘনিষ্ঠদের সঙ্গে কথা বলছেন তদন্তকারীরা।

Check Also

ফেসবুক বান্ধবীর সঙ্গে ক’রোনা নিয়ে চ্যাট করে ব্যবসায়ী খোয়ালেন ৫৫ লাখ টাকা!

ক’রোনার ভ্যাকসিন তৈরির কাঁচামাল সরবরাহ করার টোপ দিয়ে স্কটিস নাগরিক নারীর ফাঁদে পড়ে প্রতারিত হলেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *