এবার প্রতারণার মামলা হলো রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে!

রাজশাহী প্রতিনিধি : ছাত্রদলের নেতা থেকে হঠাৎ ছাত্রলীগের জেলার সভাপতি বনে যাওয়া সাকিবুল ইসলাম রানাকে নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। ছাত্রলীগ সভাপতি হওয়ার আগে সাইকেল চুরির অভিযোগও রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। মদ খেয়ে মাতলামি করা, শাখা সংগঠনগুলো থেকে টাকা নেওয়াসহ নানা অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।

এবার আদালতে প্রতারণার মামলা হয়েছে রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাকিবুল ইসলাম রানার বিরুদ্ধে।

চাকরি দেওয়ার নামে টাকা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে আজ বৃহস্পতিবার রাজশাহীর দুর্গাপুর থানার আমলি আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়। আদালত আগামী ১২ ডিসেম্বর সাকিবুলকে হাজির হতে সমন জারি করেছেন।

মামলার বাদী মো. আতিকুর রহমান। তিনি রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি হওয়ার পর দুর্গাপুর শাখার কমিটি বিলুপ্ত করা হয়।

মামলার এজাহার ও বাদী সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি দেওয়ার কথা বলে সাকিবুল ইসলাম আতিকুরের কাছ থেকে গত ৩১ মার্চ এক লাখ টাকা নেন। ৯০ হাজার টাকা ক্যাশ ও ১০ হাজার টাকা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নেন। মে মাসের মধ্যে আতিকুরকে চাকরি দেওয়ার কথা ছিল। সময় পার হয়ে গেলে আতিকুর টাকা ফেরত চান। সাকিবুল দুই মাসের মধ্যে টাকা ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু দুই মাস পার হয়ে গেলেও সাকিবুল টাকা ফেরত দেননি। গত শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুর্গাপুরে সাকিবুলের সঙ্গে দেখা হয় আতিকুরের। তখন টাকা চাইলে তা দিতে অস্বীকার করেন সাকিবুল।

পরে আজ সাকিবুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করেন আতিকুর। আইনজীবী মো. ইমরান কলিম খান বাদীর পক্ষে মামলাটি ফাইলিং করেন। তিনি বলেন, রাজশাহীর দুর্গাপুর থানার আমলী আদালতের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারক মো. লিটন হোসেন মামলাটি গ্রহণ করেছেন। আগামী ১২ ডিসেম্বর আসামি সাকিবুল ইসলাম রানাকে আত্মসমর্পণের জন্য আদালতে সশরীরে হাজির হতে সমন জারি করেছেন আদালত।

মামলার বিষয়ে অভিযুক্ত সাকিবুল ইসলামের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি কল ধরেননি।

সাত মাস আগে জেলা ছাত্রলীগের কমিটি হওয়ার পরেই এক নারীর সঙ্গে তাঁর আপত্তিকর ছবি ছড়িয়ে পড়ে। গতকাল বুধবার রাতে দলের এক নারী কর্মীর সঙ্গে সাকিবুল ইসলাম রানার মোবাইলে কথোপকথনের একটি অডিও ক্লিপ ফাঁস হয়েছে। চার মিনিট ২৯ সেকেন্ডের ওই অডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে রাজশাহীতে তোলপাড় শুরু হয়।

এই অডিওতে সাকিবুল স্বীকার করেন, বড় চিটারি-বাটপারি করে তিনি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হয়েছেন। তিনি সব চিটারের সর্দার। এ ছাড়া ওই অডিওতে টাকা আর সহসভাপতি পদের লোভ দেখিয়ে নারী কর্মীর সঙ্গে তাঁর যৌন কেলেঙ্কারিরও ইঙ্গিত পাওয়া যায়।
source:somoyer kanthosor

joy

Related Posts

নুরজাহান গ্রুপের ৬ জনের পাসপোর্ট জব্দের নির্দেশ

নুরজাহান গ্রুপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, এমডি ও পরিচালকদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম অর্থঋণ আদালতে দায়ের করা ১৫-২০টি মামলায় একাধিক ব্যাংকের পাওনা চার হাজার কোটি টাকারও বেশি। সাউথইস্ট ব্যাংকের এক…

একসাথে একাধিক প্রেম, ৩ প্রেমিক মিলে জীবন নিলো প্রেমিকার!

দশম শ্রেণির ছাত্রী সানজিদা খানম ইভাকে ছু’রিকাঘাতে খু’ন করে বলে দাবি করেছে পুলিশ।সানজিদাকে ধ”ণ করা হয়েছিল কিনা তা নিশ্চিত হতে পরীক্ষার জন্য মেডিক্যালের ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। জানা…

Leave a Reply

Your email address will not be published.